Latest News

যাদবপুরের যুবতির ছবি নিষিদ্ধ সাইটে দেওয়ার ঘটনায় ধৃত মূল পাণ্ডা

PAYEL DEY 12/12/2018 Technology

নিজস্ব সংবাদদাতা, ওয়েব ডেস্কঃ যাদবপুরের এসকর্ট সার্ভিসের ঘটনায় অবশেষে পুলিশের জালে মূলচক্রী। ইন্টারনেটে এসকর্ট সার্ভিসের ওয়েবসাইটে যুবতির ছবি, ফোন নম্বর এবং ঠিকানা দেওয়ার ঘটনায় পলাতক ছিল সে।

পুলিশ সূত্রে খবর,অনেক দিন ধরেই তাকে আটক করার জন্য সঠিক সুযোগের অপেক্ষায় ছিল তদন্তকারী অফিসাররা।বুধবার সেই সুযোগের দেখা মিলল। এইদিন সকালে তাকে আটক করে লালবাজারের সাইবার ক্রাইম থানার আধিকারিকরা। জানা গিয়েছে, পারিবারিক বিবাদের জেরেই প্রতিবেশীর কুবুদ্ধিতেই এই কাজ করে গৌরব বর্মা নামে অভিযুক্ত যুবক। ঘটনার পর শুক্রবার তাকে গ্রেপ্তার করেছিল সাইবার ক্রাইম তদন্তকারীরা।

সূত্রের খবর, একটি নিষিদ্ধ ওয়েবসাইটে প্রথমে আপলোড করে দেওয়া হয় যাদবপুর থানা এলাকার আজাদগরের এক যুবতির ছবি সহ তার ডাকনাম, কর্ম ও পরিচয়।তার সঙ্গে ওই যুবতির ফোন নম্বরও ভাইরাল হয়ে যায়। পরে একইভাবে ওই যুবতির ভাইয়ের বউয়ের ছবিও আপলোড করা হয় ওয়েবসাইটে। পরে তাঁর বাড়ির ঠিকানাও দিয়ে দেওয়া হয়। আবার চিন্তে অসুবিধা না হওয়ার জন্য বাড়ির গেটের ছবিও আপলোড করা হয় ওই ওয়েবসাইটে। এরপর দিন রাত অচেনা মানুষ এসে তার নাম ধরে ডাকতে থাকে। সারা না পেয়ে দরজায় ধাক্কা দেয়। দিন রাত এই অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে ওঠে তারা। আতঙ্কে প্রায় ঘরবন্দী অবস্থায় রেখেছিলেন নিজেদের। এই ঘটনায় তিতিবিরক্তি হয়ে গত ৪ অক্টোবর কলকাতা পুলিশের সাইবার ক্রাইম থানায় অভিযোগ দায়ের করেন ওই যুবতি। অভিযোগ দায়েরের পরেই ঘটনার তদন্ত শুরু করে তদন্তকারী অফিসাররা

সূত্রের খবর, সেই অভিযোগের সূত্র ধরে গৌরব বর্মাকে গ্রেপ্তার করা হয় চলতি মাসের ৭ তারিখে। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, আজ সকাল সাড়ে দশটা নাগাদ আটক করা হয় মূল অভিযুক্ত।

পুলিশ সূত্রে খবর, ধাপে ধাপে জেরার মুখে পরে গৌরব স্বীকার করে, ওই মহিলাই তাকে উত্তপ্ত করে এই কাজ করার জন্য। তারপরই শুরু হয় তার খোঁজ। আজ জানা যায় অভিযুক্ত আজাদগড়ের বাড়িতে ফিরেছে। খবর পেয়ে তাকে আটক করে লালবাজারে নিয়ে যাওয়া হয়।

Related Post